শেখ হাসিনার পর রাষ্ট্র ক্ষমতায় কে আসবে? ঃ সৈয়দ বোরহান কবীর

132

ঢাকাঃ একজন বিদেশীর সাথে কথা হচ্ছিল কদিন আগে। ঢাকার এক্সপ্রেসওয়েতে গাড়ী চালিয়ে তিনি মুগ্ধতার কথা বলেছিলেন। কুড়ি বছর আগে একবার বাংলাদেশে এসেছিলেন এই উন্নয়নকর্মী। কুড়ি বছরের ব্যবধানে বাংলাদেশের বদলে যাওয়া দৃশ্যপট দেখে তিনি উল্লাসিত, আপ্লুত। একটি দেশ কিভাবে এতো কম সময়ে এভাবে উন্নতি করতে পারে? প্রশ্নটা করে নিজেই উত্তর দিলেন। দুটি কারণ, এদেশের জনগণের অদম্য প্রাণশক্তি আর অসাধারন নেতৃত্ব। একজন যোগ্য এবং সঠিক নেতা যে জনগণের শক্তিতে কোথায় নিয়ে যেতে পারেন, তার প্রমাণ বাংলাদেশ এবং শেখ হাসিনা। একটানা কথা গুলো বলে থামলেন ভদ্রলোক। একটু দম নিয়ে, আবার কথা শুরু করলেন। আচমকা আমাকে প্রশ্ন করলেন শেখ হাসিনার পর কে? নিজেই উত্তর দিলেন ‘আই ডোন্ট সি এনি ওয়ান’ (আমি কাউকে দেখিনা)। তার এই প্রশ্ন আমাকে কিছুটা হলেও ভাবনার সাগরে নিয়ে গেল। শেখ হাসিনা গত ২৮ সেপ্টেম্বর ৭৭ তম জন্মদিন পালন করলেন। শুধু বাংলাদেশ নয় সারা বিশ্বের বিবেচনায় তিনি অন্যতম প্রবীন রাজনীতিবিদ। এধরনের বয়সে অনেকে অবসর জীবন যাপন করেন। নাতি-নাতনী নিয়ে চুটিয়ে সময় কাটান। কারো কাটে নানা রোগ শোকের সঙ্গে যুদ্ধ করে। কিন্তু শেখ হাসিনা তার আশ্চর্য ব্যতিক্রম। এই বয়সেও তিনি প্রচন্ড ব্যস্ত। কর্মচাঞ্চলে ভরপুর এক উজ্জীবিত মানুষ। এখনও আমাদের চেয়ে তিনি বেশি কাজ করেন। নিজ যোগ্যতা, দক্ষতায় এবং মেধায় তিনি নিজেকে অনন্য উচ্চতায় নিয়ে গেছেন। রাষ্ট্রনায়ক থেকে হয়েছেন বিশ্বনেতা। দলে এবং দেশে তার কোন বিকল্প নেই। শেখ হাসিনার বিকল্প একমাত্র শেখ হাসিনাই।

বিএনপির নেতৃত্বে বিরোধী দল গুলো এখন এক দফা আন্দোলন করছে। এক দফার মূল দাবী হলো ‘শেখ হাসিনার অধীনে কোন নির্বাচন নয়।‘ বিএনপি নেতারা ইদানিং সারাক্ষণ শেখ হাসিনার সমালোচনায় মুখর থাকেন। সব আক্রমনের কেন্দ্রবিন্দুতেই তিনি। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে যারা বিদেশে বসে বাংলাদেশ বিরোধী অপপ্রচারের দোকান খুলে বসে নিয়মিত দূর্গন্ধযুক্ত কদর্য নর্দমার মতো বমি উগলাচ্ছেন, তাদেরও প্রধান লক্ষ্য বস্তু এখন ‘শেখ হাসিনা’। শেখ হাসিনাকে সরানোই তাদের জীবনের যেন একমাত্র আরাধ্য। কিন্তু শেখ হাসিনাকে সরিয়ে কাকে আনতে চান তারা? নির্বাচিত না অনির্বাচিত সরকার প্রধান? ধরা যাক, বিএনপির কথাই ঠিক। তারা দেশে একটি শান্তিপূর্ণ, অবাধ, নিরপেক্ষ নির্বাচন চায়। তারা এটাও বিশ্বাস করে, ‘নিরপেক্ষ এবং অবাধ’ নির্বাচন হলে, বিএনপি জিতবেই জিতবে। খুব ভালো কথা। বিএনপি যদি নির্বাচনে বিপুলভাবে জয়ী হয়, তাহলে প্রধানমন্ত্রী কে হবেন? আমি না, বিভিন্ন দেশের রাষ্ট্রদূত এবং কূটনীতিকরাও বিএনপি নেতাদের হরহামেশাই এই প্রশ্ন করেন। এর জবাবে বিএনপি মহাসচিব এবং অন্যান্য নেতারা যে জবাব দেন, তা রীতিমতো কৌতুক। বিএনপি নেতা মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, কিছুদিন আগে এক সাক্ষাৎকারেও এর উত্তর দিয়েছেন। তিনি বলেছেন, ‘বিএনপি ক্ষমতায় এলে বেগম জিয়াই প্রধানমন্ত্রী হবেন। তার অবর্তমানে তারেক জিয়া হবেন সরকার প্রধান।‘ কি সাংঘাতিক কথা। বেগম জিয়া দুটি মামলায় সাজা পেয়েছেন। একটি মামলায় হাইকোর্টে তার সাজা বহাল আছে। বাংলাদেশের সংবিধান অনুযায়ী বেগম জিয়া প্রধানমন্ত্রী হওয়া তো দুরের কথা, সংসদ সদস্য হতে পারবেন না। তাকে বিএনপি মহাসচিব কিভাবে প্রধানমন্ত্রী বানাবেন বুঝলাম না। একই বাস্তবতা লন্ডনে পলাতক বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক জিয়ার বেলাতেও। এমনকি আইন ও সংবিধান পাল্টালেও আগামী সরকার প্রধান হওয়া তাদের পক্ষে সম্ভব না। মির্জা ফখরুল এসব জানেন না, এমনটি নয়। জেনে শুনেই এই অসত্য উচ্চারণ তিনি করছেন। কারণ জনগণকে, বিশেষ করে দলীয় নেতা কর্মীদের উজ্জীবিত রাখা। কর্মীরা যেন হতাশ না হয়ে যান, এজন্যই এধরনের বক্তব্য। কারণ, বিএনপি মহাসচিব ভালো করেই জানেন, শেখ হাসিনার বিকল্প হিসেবে তিনি (মির্জা ফখরুল) জনগণের কাছে তো নয়ই, তার নিজের দলেও কাছেও গ্রহণযোগ্য নন। বেগম জিয়ার দন্ডের কথা যদি বাদও দেই, তারপর তিনি কি শেখ হাসিনার বিকল্প? বিএনপি নেতারাই বলছেন, বেগম জিয়া গুরুতর অসুস্থ। জীবন-মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে। তাহলে কোনটা সত্য? বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী হওয়া এক কঠিন দায়িত্ব। শেখ হাসিনা যেভাবে দিনরাত একাকার করে এই দায়িত্ব পালন করছেন। বেগম জিয়া কি অসুস্থ শরীরে তার সিকি পরিমান দায়িত্ব পালন করতে পারবেন? বেগম জিয়া তাই কোন ভাবেই শেখ হাসিনার বিকল্প নন।

তারেক জিয়াকে নিয়ে যে আবেগ, উত্তাপ, তা শুধু বিএনপির তরুণ কর্মীদের মধ্যে। সাধারণ মানুষ তারেক জিয়াকে রাজনীতিবীদ বলে মনে করে না। একজন দূর্নীতিবাজ, দূর্বৃত্ত মনে করে। তারেক জিয়া যদি কোনদিন দূর্ভাগ্যক্রমে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী হন, তাহলে দেশের কি হাল হবে তা সহজেই অনুমান করা যায়। ২০০১ থেকে ২০০৬ সাল পর্যন্ত সময়ে ছায়া প্রধানমন্ত্রী হয়ে তিনি দেখিয়ে দিয়েছেন, দূর্নীতি কাকে বলে, কত প্রকার কি কি। সেই সময়ে হাওয়া ভবনের লুণ্ঠন কাহিনী আরব্য রজনীকেও হার মানায়। কাজেই তারেক জিয়াকে প্রধানমন্ত্রীর বিকল্প ভাবা এক ধরনের গর্হিত অপরাধ।

বিএনপি নির্দলীয় নিরপেক্ষ তত্ত্বাধায়ক সরকার চায়। বিএনপির অনেক নেতা বলেন, প্রধানমন্ত্রী কে হবে তা পরের বিষয়, আগে একজন তত্ত্বাধায়ক সরকার প্রধানের কথা ভাবুন। চোখ বন্ধ করে দেখুন তো শেখ হাসিনার কোন বিকল্প খুঁজে পান কি না? গত ১৫ বছরে শেখ হাসিনা নিজেকে এক অনন্য উচ্চতায় নিয়ে গেছেন। একাই দেশ সামলাচ্ছেন। আধুনিক বাংলাদেশের রূপকার তিনি। সব কিছুর দিকে তার দৃষ্টি। এদেশের মানুষের আস্থা অর্জন করেছেন তিনি তিল তিল করে। সব কিছু উপেক্ষা করে। এই মুহুর্তে দেশে তার কোন বিকল্প নেই। বাংলাদেশকে তিনি যে সম্ভাবনার সোনালী বন্দরে নিয়ে গেছেন যেখান থেকে দেশকে এগিয়ে নেয়ার মতো যোগ্য ব্যক্তি কি এই মুহুর্তে বাংলাদেশে কেউ আছেন? গত ১৫ বছর শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ সরকারের অনেক ভালো কাজ যেমন আছে, তেমনি এই সরকারের আছে অনেক দূর্বলতা এবং সমালোচনাও। গত ৩/৪ বছরে এই সমালোচনার ক্ষেত্রগুলো বেড়েছে। অর্থপাচার, খেলাপী ঋণ, দূর্নীতি সংক্রামক ব্যাধির মতো ছড়িয়ে পরেছে সমাজের সর্বত্র। কিছু মন্ত্রী অযোগ্যতা এবং ব্যর্থতায় মানুষ অসন্তুষ্ট হতাশ। সর্বত্র আমলাতন্ত্রে দৌরাত্মে মানুষ অস্থির। দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতি মানুষ আর সহ্য করতে পারছে না। এতো কিছুর পরও মানুষ যে আশা হারায়নি। এর একটি কারণ হলো শেখ হাসিনা। দেশের মানুষ তার উপর আস্থাশীল। জনগণ শেখ হাসিনাকে বিশ্বাস করে। নিশ্চয়ই তিনি সংকট উত্তরণে সাহসী পদক্ষেপ নেবেন, এমনটা মনে করেন দেশের বেশির ভাগ মানুষ। দেশের সিংহভাগ জনগণের কাছে শেখ হাসিনার কোন বিকল্প নেই।

আওয়ামী লীগ সরকারকে নিয়ে পশ্চিমা দেশগুলো বিশেষ করে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের অস্বস্তি এখন কোন নতুন বিষয় নয়। বাংলাদেশের গণতন্ত্র, সুশাসন, মানবাধিকার ইস্যুতে তাদের রয়েছে অনেক প্রশ্ন। কিন্তু একটি বিষয়ে এসে তারা আটকে যায়। শেখ হাসিনার বিকল্প কে? শেখ হাসিনাকে বাদ দিলে কে হাল ধরবে এই দেশের। শেখ হাসিনা বিহীন বাংলাদেশ কি আরেকটি আফগানিস্তান হবে না? আমার তো মনে হয়, যুক্তরাষ্ট্রের কাছে যদি শেখ হাসিনার বিকল্প কেউ থাকতো, তাহলে তারা এতোদিনে পাকিস্তানের মতো কোন ঘটনা ঘটিয়ে ফেলতো। তাই, দেশ পরিচালনা শেখ হাসিনা অবিসংবিদিত নেতা। শেখ হাসিনার পর কে? এই প্রশ্নের উত্তর নেই কারো কাছে।

রাষ্ট্রে সরকার প্রধান হিসেবে শেখ হাসিনার বিকল্প যেমন কেউ নেই, তেমনি আওয়ামী লীগেও শেখ হাসিনার বাইরে কোন নেতা নেই। আওয়ামী লীগ আরো বেশী শেখ হাসিনা নির্ভর। কিংবা বলা যায় পুরোপুরি শেখ হাসিনা নির্ভর। আমার তো মনে হয় শেখ হাসিনা ছাড়া আওয়ামী লীগ বিভ্রান্ত, মুমুর্ষ এবং প্রায় বিকলাঙ্গ। আওয়ামী লীগের কর্মীরা একমাত্র শেখ হাসিনাকে বিশ্বাস করেন, অন্য নেতাদের উপর তাদের আস্থা নেই। অন্যান্য নেতারা, প্রেসিডিয়াম সদস্য বলি আর কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব বলি, নিজেরা গৎবাঁধা বক্তৃতা দেয়া ছাড়া আর কোন কাজ করতে পারেন না। একটি সিদ্ধান্তের জন্য তারা তাকিয়ে থাকেন শেখ হাসিনার দিকে। রাজনৈতিক কৌশল নির্ধারনের যোগ্যতাও নেই বেশির ভাগ নেতার। শেখ হাসিনা যেন আওয়ামী লীগকে এক সূত্রে গেঁথে রেখেছেন। তিনি না থাকলে এই দলটি ৭৫ এর পরবর্তী অবস্থায় মতো অবস্থায় চলে যাবে। ইদানিং প্রায় আওয়ামী লীগের মধ্যে শেখ হাসিনার উত্তরাধিকার নিয়ে আলোচনা শুনি। শেখ হাসিনার পর দলের হাল কে ধরবেন, তা এখনই ঠিক করা উচিত এমন মত অনেকের। শেখ হাসিনা ৭৭ বছরে পা রাখলেন। আগামী  কাউন্সিলে হয়তো তিনি দলের দায়িত্ব ছাড়ার ঘোষণা দেবেন, এমন শংকা অনেকের। তখন কে হাল ধরবেন আওয়ামী লীগের? শেখ রেহানা, সজীব ওয়াজেদ জয়, সায়মা ওয়াজেদ পুতুল নাকি রিদওয়ান মুজিব সিদ্দিকী ববি? কে ভালো হবে, এ নিয়ে প্রায়ই আওয়ামী লীগের বিভিন্ন আড্ডায় নানা আলোচনা হয়। শেখ হাসিনা কেন আওয়ামী লীগের পরবর্তী নেতা এখনই নির্ধারণ করছেন না, এনিয়ে কারো কারো উৎকণ্ঠা কানে আসে। এই সব প্রশ্নের উত্তর দুভাবে দেয়া যায়। প্রথমত, বয়স প্রসঙ্গ। শেখ হাসিনা এখন ৭৭। এই বয়সে তিনি যে পরিশ্রম করেন, তা কজন তরুণ-যুবক করতে পারেন? এই নভেম্বরে জো বাইডেন ৮১ বছর পূর্ণ করবেন। দ্বিতীয় মেয়াদে অর্থাৎ ২০২৪ সালে প্রেসিডেন্ট নির্বাচন করার ঘোষণা মার্কিন প্রেসিডেন্ট দিয়েছেন। কোথায় তার অবসরের কথা তো কেউ বলেন না। ৮২ বছর বয়সেও মন মোহন সিংহ ভারতের প্রধানমন্ত্রী ছিলেন। তার ক্লান্তি কিংবা বার্ধক্য নিয়ে তো কোন প্রশ্ন তোলা হয়নি। কিছু কিছু মানুষের জীবন হয় কর্মমুখরতায় ভরপুর। আমৃত্যু তিনি কাজ করে যান। শেখ হাসিনা তেমনি একজন। তার রাজনীতি থেকে কিংবা সরকার প্রধানের পদ থেকে তার অবসরের ভাবনা অবান্তর। এ সিদ্ধান্তটা একান্তই শেখ হাসিনার। তার প্রতিটি মুহুর্ত জনগণের কল্যাণে নিবেদিত। তাই এখনই তার অবসরের চিন্তাটা না করাই শ্রেয়।

এবার আসা যাক আওয়ামী লীগের উত্তরাধিকার প্রসঙ্গে। আওয়ামী লীগ একটি গণতান্ত্রিক রাজনৈতিক দল। এই দলটির নেতৃত্ব কর্মীদের অভিপ্রায় থেকে উৎসারিত। আওয়ামী লীগ তার দীর্ঘ রাজনৈতিক ইতিহাসে উত্তরাধিকারের রাজনীতি করেনি। হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী, মাওলানা ভাসানী থেকে বঙ্গবন্ধু নেতৃত্বে এসেছেন নিজ যোগ্যতায়। কর্মীদের উপর নেতৃত্ব চাপিয়ে দেয়া হয়নি। শেখ হাসিনাও আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে এসেছেন দলের অস্তীত্বের প্রয়োজনে। দল বাঁচানোর আর কোন বিকল্প ছিলো না জন্যই শেখ হাসিনাকে দলের সভাপতি করা হয়েছিল। একথা ঠিক, জাতির পিতার কন্যা জন্যই তিনি কর্মীদের ভালোবাসা পেয়েছেন। দলকে ঐক্যবদ্ধ করতে পেরেছেন। কিন্তু গত ৪৩ বছরে আওয়ামী লীগকে তিনি আজকের জায়গায় নিয়ে এসেছেন নিজ যোগ্যতায়, পরিশ্রম এবং প্রচন্ড ত্যাগ স্বীকারের মাধ্যমে। যতো দিন তিনি কর্মক্ষম আছেন, ততোদিন আওয়ামী লীগে তার বিকল্প কেউ হবে না। শেখ হাসিনার পর আওয়ামী লীগের নেতৃত্ব আসবে কর্মীদের স্বত:ফূর্ত আকাঙ্খা থেকে। কর্মীরাই পছন্দ করবেন, কে হবে আওয়ামী লীগের নেতা। উপর থেকে চাপিয়ে দেয়া নেতৃত্ব যে গ্রহণযোগ্য হয়না, ভারতের কংগ্রেসের রাহুল গান্ধী তার সবচেয়ে বড় প্রমাণ। তাই শেখ হাসিনার পর কে? এই প্রশ্নটা এখন বড্ড অসময়ের প্রশ্ন। এই রাষ্ট্র এবং জনগণকে শেখ হাসিনার এখনও অনেক কিছুই দেয়ার বাকী আছে।

 

সৈয়দ বোরহান কবীর, নির্বাহী পরিচালক, পরিপ্রেক্ষিত

ই-মেইল: poriprekkhit@yahoo.com

পূর্বের খবরআসন্ন নির্বাচনকালীন গণমাধ্যম: আশঙ্কা ও ভিসা নীতি
পরবর্তি খবরআওয়ামী লীগ যে কৌশলে গ্রহণযোগ্য নির্বাচন করতে চায়