যারা সিন্ডিকেট করে মানুষকে কষ্ট দেয় তারা দেশদ্রোহী: নাছিম

30

অনলাইন ডেস্ক:

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও ঢাকা-৮ আসনের সংসদ সদস্য কৃষিবিদ আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম বলেন, সব ব্যবসায়ী সিন্ডিকেটের সঙ্গে জড়িত না। যারা সিন্ডিকেট করে দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধি করে মানুষকে কষ্ট দেয় তাদের বিপক্ষে আমরা সবসময় সোচ্চার।

রোববার (৩ মার্চ) সকালে বীর মুক্তিযোদ্ধা প্রথম শহীদ ফারুক ইকবালের ৫৩তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে মৌচাক চৌরাস্তা মোড়ে স্থাপিত শহীদ ফারুক ইকবাল স্মৃতি স্তম্ভে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ শেষে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে তিনি এ কথা বলেন।

তিনি বলেন, সিন্ডিকেটের হাত থেকে বাংলাদেশের মানুষকে রক্ষা করা দরকার। যারা মজুত করে কৃত্রিম সংকট তৈরি করে বেশি মুনাফা লাভ করে তারা দেশবিরোধী ও দেশদ্রোহী। এদের আইনের আওতায় এনে বিচার করার মাধ্যমে দেশের মানুষের দুঃখ কষ্ট লাঘব করার জন্য আওয়ামী লীগ ও সরকার তার অবস্থান থেকে প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে।

দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধি নিয়ে তিনি বলেন, সরকার আন্তরিকভাবে দ্রব্যমূল্য কমানোর প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। এক্ষেত্রে আন্তরিকতার কোনো অভাব নেই। ইউক্রেন রাশিয়ার যুদ্ধের কারণে সারা বিশ্বে জ্বালানি তেলের দাম বৃদ্ধি পাওয়ায় জিনিসপত্রের দামও বৃদ্ধি পেয়েছে। দেশের মানুষ কষ্টে আছে এটি আমরা স্বীকার করে নিয়েই দ্রব্যমূল্য কমানোর চেষ্টা করছি। যারা মানুষের দুঃখ কষ্টকে নিয়ে রাজনীতি করে মানুষকে বিপদগামী করতে চায় তাদের হাত থেকেও দেশের মানুষ মুক্তি পেতে চায়।

আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর বিরুদ্ধে বিএনপির অভিযোগের বিষয়ে তিনি বলেন, বিএনপি-জামাত ফৌজদারি অপরাধ করায় পুলিশ দেখলে ভয় পায়। এটা খুব স্বাভাবিক বিষয়। এদের নেতারা আবার বড় বড় কথা বলে। তারা বলে পুলিশ ছাড়া আসলে নাকি তারা আওয়ামী লীগকে দেখিয়ে দেবে। ব্যাপারটা কিন্তু এক ধরনের বিএনপি নেতাদের ফোবিয়ায় পরিণত হয়েছে। তারা পুলিশকে ভয় পায় বলে বারবার পুলিশের ওপর দোষ চাপায়। যারা অপরাধী তারাই আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর বিরুদ্ধে অভিযোগ আনে।

তিনি বলেন, দেশের মানুষ এখন আর বিএনপি জামাতকে পছন্দ করে না। এজন্য তাদের আন্দোলন সফল হয়নি, বারবার ব্যর্থ হয়েছে। এই ব্যর্থতার দায়ভার তারা দেশের জনগণ ও আওয়ামী লীগের ওপর চাপাতে চায়। এজন্য তারা সাম্প্রদায়িক রাজনীতি করে তাদের সঙ্গে বন্ধুত্ব গড়ে তোলে। এদের সঙ্গে নিয়ে দেশবিরোধী রাজনীতি করে। দেশের মানুষ এদের আর আশ্রয় ও সমর্থন দেবে না এটি তাদের চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত, যা বারবার প্রমাণিত হচ্ছে। এই কারণে বঙ্গবন্ধু কন্যা দেশরত্ন শেখ হাসিনা বারবার দেশের প্রধানমন্ত্রী নির্বাচিত হচ্ছেন।

বিএনপির আন্দোলন নিয়ে তিনি বলেন, বিএনপির আন্দোলন সম্পর্কে দেশের মানুষের ধারণা রয়েছে। তারা আন্দোলনে ডাক দেয় কিন্তু আন্দোলনে নামে না। দেশের জনগণ সমর্থন করে না। বিএনপি নেতারা আরাম-আয়েশে সময় কাটায় আর কর্মীরা নেতাদের বিশ্বাস করে না। আবার নেতারা তাদের কর্মীদের বিশ্বাস করে না। এটাই আমরা বারবার দেখেছি। তাদের অপরাজনীতি এখন দেশের মানুষের কাছে পরিষ্কার।

পূর্বের খবরবিএনপি-জামায়াতের সঙ্গে বেহেশতেও যেতে চাই না: কাদের সিদ্দিকী
পরবর্তি খবরবাংলাদেশ-শ্রীলঙ্কা টি-টোয়েন্টি সিরিজের ট্রফি উন্মোচন