মার্কিনী প্রতিষ্ঠানগুলোর ওপর মানুষের আস্থা কমছেঃ গ্যালাপ

35

অনলাইন ডেস্কঃ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র সরকার, বিচার বিভাগ ও সামরিক বাহিনীর প্রতি জনগণের আস্থা কমে গেছে, যা দেশটিকে জি-সেভেন গ্রুপের অন্যান্য দেশের চেয়ে পিছিয়ে রেখেছে বলে গ্যালাপের নতুন এক বিশ্লেষণে দেখা গেছে।

প্রায় ৬৮ শতাংশ আমেরিকানের তাদের জাতীয় সরকারের প্রতি আস্থার অভাব রয়েছে। মাত্র ৪২ শতাংশ আমেরিকানের বিচার বিভাগের প্রতি আস্থা রয়েছে।

এমনকি ঐতিহ্যগতভাবে জনপ্রিয় প্রতিষ্ঠান যুক্তরাষ্ট্রের সেনাবাহিনীর প্রতিও জনগণের আস্থা ২০২১ সালের ৯০ শতাংশ থেকে গত বছর ৮১ শতাংশে নেমে এসেছে।

শিল্পোন্নত দেশ কানাডা, ফ্রান্স, জার্মানি, ইতালি, জাপান, যুক্তরাজ্য ও যুক্তরাষ্ট্র নিয়ে জি-সেভেন গঠিত।

জি-সেভেনের দেশগুলোর মধ্যে জার্মানির জনগণ তাদের সেনাবাহিনীর প্রতি আস্থার সর্বনিম্ন স্তর প্রদর্শন করেছে। প্রায় ৬০ শতাংশ জার্মানের দেশটির সেনাবাহিনীর ওপর আস্থার অভাব রয়েছে।

ওয়াশিংটনে বিচার বিভাগের ভবনের বাইরে একটি আমেরিকান পতাকা উড়ছে। ২২ মার্চ, ২০১৯। ফাইল ছবি।
ওয়াশিংটনে বিচার বিভাগের ভবনের বাইরে একটি আমেরিকান পতাকা উড়ছে।

 

যুক্তরাষ্ট্রের জনগণকে দেশের সামরিক বাজেট নিয়ে বিভক্ত বলে মনে হচ্ছে। যুক্তরাষ্ট্র তাদের সামরিক খাতে অন্য সমস্ত জি সেভেনভুক্ত দেশের সম্মিলিত ব্যয়ের চেয়ে বেশি ব্যয় করে।

প্রায় ৩৫ শতাংশ জনগণ মনে করেন, ব্যয় খুব বেশি, ২৯ শতাংশ জনগণ মনে করেন ব্যয় খুব কম, এবং ৩৩ শতাংশ জনগণ এটিকে সঠিক পরিমাণ হিসেবে বিবেচনা করেন।

গ্যালাপ বিশ্লেষক বেনেডিক্ট ভিগার্স ভয়েস অফ আমেরিকাকে বলেন, “এমন কোনো স্পষ্ট প্রমাণ নেই যা এটিকে পুরোপুরি ব্যাখ্যা করতে পারে।” তিনি বলেন, এই তথ্যগুলো আমেরিকানদের মধ্যে বৃহত্তর অংশের প্রবণতার অংশ যা রাজনৈতিক প্রতিষ্ঠানগুলোতে মানুষের আস্থার ক্ষেত্র ছাড়িয়ে আরও বেশি কিছুর ইংগিত দেয়।”

বিশেষজ্ঞরা সরকারি সেবা প্রদানের মান, দুর্নীতি ও ক্ষমতার অপব্যবহারের বিরুদ্ধে কার্যকর ব্যবস্থা এবং আয় ও সম্পদের বৈষম্য মোকাবিলায় অগ্রগতির সাথে প্রতিষ্ঠানগুলোর প্রতি জনগণের আস্থার সম্পর্ক রয়েছে বলে মনে করেন।

আমেরিকান প্রতিষ্ঠানগুলোর প্রতি জনগণের আস্থা হ্রাস পাচ্ছে, যা সরকারি সংস্থাগুলোর বাইরেও প্রসারিত হচ্ছে।

গির্জা এবং সংগঠিত ধর্মের প্রতি আস্থা ক্রমশ হ্রাস পেয়েছে। গত বছর ৩০ শতাংশ আমেরিকান এর প্রতি “সামান্যই” আস্থা প্রকাশ করেছে- যা ১৯৭৩ সালে গ্যালাপ এই প্রশ্নটি করা শুরু করার পর থেকে সর্বোচ্চ পরিমাণ।

গণমাধ্যমের প্রতিও জনগণের আস্থা হ্রাস পেয়েছে। ৪০ শতাংশ আমেরিকান বিশেষত সংবাদপত্র এবং টেলিভিশনের ওপর খুব সামান্য আস্থার কথা জানিয়েছে।

পূর্বের খবরগাজায় দীর্ঘ হচ্ছে লাশের সারি
পরবর্তি খবরইউটিউবে অনুভূতিতে আঘাতের কথা করলেই নাটক প্রত্যাহার!