ভিসা ছাড়াই যেসব দেশে যেতে পারেন বাংলাদেশিরা

90

নিউজ ডেস্কঃ বাংলাদেশী নাগরিকত্বসহ যে কোন সাধারণ বেসামরিক নাগরিককে সাধারণ পাসপোর্ট দেওয়া হয়। সংবিধান মতে, দেশের যেকোনো নাগরিক ব্যক্তিগত ব্যবহারের জন্য, যেমন- পড়াশোনা, ভ্রমণ, চিকিৎসা, ছুটি বা ব্যবসায়িক ভ্রমণের জন্য এই পাসপোর্ট পাবেন।

এছাড়া রয়েছে অফিসিয়াল পাসপোর্ট। রাষ্ট্রের সরকারি কর্মচারীদের জন্য বাংলাদেশের সরকারী পাসপোর্ট জারি করা হয়। দেশের যে কোনো ধরনের অফিসিয়াল ক্ষমতায় অধিষ্ঠিত ব্যক্তিদের জন্য একটি বিশেষ পদবী হিসেবে পাসপোর্টটি দেওয়া হয়ে থাকে। অফিসিয়াল পাসপোর্টের বৈশিষ্ট্য সাধারণ পাসপোর্টের মতোই। নির্দিষ্ট কিছু ক্ষেত্রে ছাড়া, বিভিন্ন দেশে অফিসিয়াল পাসপোর্টধারীদের জন্য ভিসার প্রয়োজনীয়তা মওকুফ করা হয়। তবে অফিসিয়াল পাসপোর্টধারী একজন ব্যক্তির ভ্রমণের আগে তাদের নিজ নিজ সরকারি কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে একটি এনওসি থাকতে হবে।

আরও রয়েছে কূটনৈতিক পাসপোর্ট। বিভিন্ন বিদেশী মিশন ও দূতাবাসে বাংলাদেশের প্রতিনিধিত্বকারী কূটনীতিকদের কূটনৈতিক পাসপোর্ট দেওয়া হয়। এই পাসপোর্টগুলো জেনেভা কনভেনশনের মাধ্যমে দেওয়া বিশেষ ক্ষমতা দেয়। বাংলাদেশ ফরেন সার্ভিসেস কর্পসের সদস্য ছাড়াও, বাংলাদেশ অর্ডার অব প্রিসিডেন্স অনুযায়ী রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী, হাউসের স্পিকারদের জন্যও কূটনৈতিক পাসপোর্ট জারি করা হয়। একজন কূটনৈতিক পাসপোর্টধারীর বিশ্বের প্রায় প্রতিটি দেশে ভিসা-মুক্ত প্রবেশাধিকার রয়েছে। তাদের কূটনৈতিক অনাক্রম্যতাও দেওয়া হয়, তাদের কোনোভাবে বিচার করা থেকে বিরত রাখা হয়।

স্বাধীনতার পর থেকে বাংলাদেশের পাসপোর্টের বৈশ্বিক অবস্থান খুব ভালো জায়গায় আছে সেটি বলা যাবে না। ২০২৩ সালে হেনলি পাসপোর্ট সূচক অনুযায়ী, ৪০ স্কোর নিয়ে বাংলাদেশের অবস্থান এখন ৯৯তম।

এই র‌্যাঙ্কিং শুধুমাত্র বাংলাদেশী সাধারণ পাসপোর্টের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য। বর্তমানে বাংলাদেশী পাসপোর্টধারীরা বিশ্বের ৪০টি দেশে চার ধরনের ভিসা সেবা উপভোগ করে।

ভিসা মুক্ত প্রবেশ:
ভিসা-মুক্ত প্রবেশ দুই দেশের মধ্যে সরাসরি ভ্রমণের অনুমতি দেয়। এটির মাধ্যমে বৈধ পাসপোর্ট থাকলেই ওইসব দেশে প্রবেশ করা যায়। তবে ভিসা-মুক্ত প্রবেশের শর্তটি কৌশলগত সম্পর্ক ও অন্যান্য পারস্পরিক সুবিধার প্রচারের জন্য দুই দেশের মধ্যে দ্বিপাক্ষিক বা একতরফা চুক্তির মাধ্যমে নির্ধারিত হয়।

আগমনের ভিসা:
এটিও ভিসা-মুক্ত প্রবেশের মতোই। তবে আগমনের ভিসার ক্ষেত্রে, একজন বাংলাদেশী পাসপোর্টধারীকে একটি দেশে ভ্রমণ করতে অভিবাসনের মনোনীত বিভাগ থেকে ভিসা স্ট্যাম্প নিতে হবে। যদি ভিসা স্ট্যাম্প না পাওয়া যায়, তবে ওই দেশে তাকে ঢুকতে দেওয়া হবে না।

ই-ভিসা:
ই-ভিসা ঐতিহ্যগত ভিসা পাওয়ার একটি সুবিধাজনক উপায়। প্রথাগত ভিসার তুলনায়, একটি ই-ভিসার প্রক্রিয়াকরণের সময় অনেক কম ও এক্সপ্রেস এন্ট্রির জন্য ডিজিটালভাবে তৈরি করা যেতে পারে।

এন্ট্রি পারমিট বা ইটিএ:
কিছু দেশ ভিসার পরিবর্তে প্রবেশের অনুমতি দেয়। আমলাতান্ত্রিক আনুষ্ঠানিকতায় কিছু পার্থক্য ছাড়া ইটিএ প্রথাগত ভিসার মতোই কাজ করে।

ইটিএ, অন অ্যারাইভাল ভিসাসহ বাংলাদেশী পাসপোর্টধারীরা কিছু দেশে যেতে পারেন।

ভিসা-মুক্ত প্রবেশের সুযোগ থাকা দেশগুলো হলো-
এশিয়ার ইন্দোনেশিয়া, ভুটান, প্রশান্ত মহাসাগরীয় দেশ ফিজি, ক্যারিবীয় দেশ হাইতি (৯০ দিন), জ্যামাইকা, ত্রিনিদাদ অ্যান্ড টোবাকো, বারবাডোজ (১৮০ দিন), ডমিনিকা, বাহামা, গ্রানাডা, সেন্ট কিটস অ্যান্ড নেভিস (৯০ দিন), সেন্ট ভিনসেন্ট অ্যান্ড দ্য গ্রেনাডিনস, আফ্রিকার গাম্বিয়া, লেসোথো, প্রশান্ত মহাসাগরীয় দেশ মাইক্রোনেশিয়া ও ভানুয়াতু।

বাংলাদেশিদের ভিসা অন-অ্যারাইভাল সুবিধা দিচ্ছে এশিয়ার মালদ্বীপ, নেপাল, কম্বোডিয়া (৩০ দিন), টিমোর-লেস্ট, দক্ষিণ আমেরিকার বলিভিয়া (৯০ দিন/ই-ভিসা), আফ্রিকার মরিটানিয়া, মোজাম্বিক, সোমালিয়া (৩০ দিন), উগান্ডা (ই-ভিসা), রুয়ান্ডা (৩০ দিন/ই-ভিসা), মাদাগাস্কার, বেনিন, গিনিয়া-বিসাউ (ই-ভিসা), কেপ ভার্দে, কমোরোস, টোগো, প্রশান্ত মহাসাগরীয় দেশ সামোয়া ও টুভালু।

বাংলাদেশের পাসপোর্টধারীদের জন্য ই-ভিসা (অনলাইন ভিসা) সুবিধা রয়েছে মালয়েশিয়া (৩০ দিন), কাতার, মিয়ানমার (২৮ দিন), আফ্রিকার চার দেশ কেনিয়া (৯০ দিন), ইথিওপিয়া, জিবুতি ও গ্যাবোনে।

এছাড়া পর্যটক নিবন্ধন সুবিধা দেয় পূর্ব আফ্রিকার সিশেলেস। বাংলাদেশের জন্য ইলেক্ট্রনিক ট্রাভেল অথরিটি (ইটিএ) ব্যবস্থা রেখেছে শ্রীলঙ্কা।

তবে আইসিএও নিয়ম অনুযায়ী, যে দেশেই ভ্রমণ করেন না কেন, ভ্রমণকারী ব্যক্তিকে নিশ্চিত করতে হবে ভ্রমণের দিন থেকে তার পাসপোর্টের অন্তত ছয় মাসের বেশি মেয়াদ বাকি আছে।

পূর্বের খবরশিল্পী এস.এম সুলতান : জন্মশতবর্ষে শ্রদ্ধাঞ্জলি
পরবর্তি খবরজুলাই মাসে রোমানিয়ায় ৫৫ বাংলাদেশি আটক