বিএনপি-জামায়াতের ৩৬ ঘণ্টার অবরোধ, ঢাকায় ছাত্রদলের মশাল মিছিল,পুলিশের লাঠিপেটার অভিযোগ, আহত ২০

113

দ্বাদশ জাতীয় নির্বাচনের তফশিল বাতিল, বেগম খালেদা জিয়াসহ বিরোধী নেতাকর্মীদের মুক্তি এবং সরকার পতনের একদফা দাবিতে ফের আজ মঙ্গলবার থেকে একাদশতম দফায় অবরোধ কর্মসূচি পালন করবে বিএনপি। আজ ভোর ৬টা থেকে আগামীকাল বুধবার সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত ৩৬ ঘণ্টার অবরোধ পালন করবে দলটি।

আজ থেকে আবার ৩৬ ঘণ্টার অবরোধ বিএনপি-জামায়াতের

ঢাকাঃ বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী গতকাল বিকালে এক ভার্চুয়ালি সংবাদ সম্মেলনে বলেন, অবৈধ আওয়ামী সরকারের পদত্যাগ ও নির্বাচনকালীন নির্দলীয় তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থার পুনঃপ্রতিষ্ঠার দাবিতে, বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি ও বিদেশে উন্নত চিকিৎসা এবং বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরসহ সব বিএনপি নেতাকর্মীদের মুক্তিসহ এক দফা দাবি আদায়ের লক্ষ্যে এবং অবৈধ তপসিল ঘোষণার প্রতিবাদে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল-বিএনপি ও সমমনা দলগুলোর উদ্যোগে অবরোধ কর্মসূচি পালিত হবে।

জামায়াতে ইসলামীও এদিকে, আলাদাভাবে অনুরূপ সর্বাত্মক অবরোধ কর্মসূচি ঘোষণা করেছে। বিএনপির যুগপৎ আন্দোলনের শরিক গণতন্ত্র মঞ্চ, ১২ দলীয় জোট, জাতীয়তাবাদী সমমনা জোট, গণতান্ত্রিক বাম ঐক্য, এলডিপি, লেবার পার্টিসহ সমমনা দলগুলোও পৃথকভাবে এই অবরোধ কর্মসূচি পালন করবে বলে জানিয়েছে। এদিকে জামায়াতে ইসলামীর ভারপ্রাপ্ত সেক্রেটারি জেনারেল মাওলানা এ টি এম মাছুম এক বিবৃতিতে শান্তিপূর্ণ অবরোধ কর্মসূচি ঘোষণা করেন।

বুদ্ধিজীবী ও বিজয় দিবসের কর্মসূচি: শহিদ বুদ্ধিজীবী দিবস ও বিজয় দিবস উপলক্ষে কর্মসূচি ঘোষণা করেছে বিএনপি। বৃহস্পতিবার শহিদ বুদ্ধিজীবী দিবসে নেতাকর্মীরা সকালে মিরপুর শহিদ বুদ্ধিজীবী স্মৃতিসৌধে শ্রদ্ধা নিবেদন করবেন। একই সঙ্গে ঢাকার কেন্দ্রীয় কার্যালয়সহ সারা দেশের দলীয় কার্যালয়ে কালো পতাকা উত্তোলন ও দলীয় পতাকা অর্ধনমিত রাখা হবে। দিবসটি উপলক্ষে আলোচনাসভা হবে। এতে বরণ্যে বুদ্ধিজীবীরা অংশ নেবেন। আর ১৬ ডিসেম্বর বিজয় দিবসের সকালে সাভারে জাতীয় স্মৃতি সৌধে একাত্তরের বীর শহিদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানাবেন কেন্দ্রীয়, মহানগর ও স্থানীয় নেতাকর্মীরা। এরপর জিয়াউর রহমানের মাজারে ফাতেহা পাঠ করা হবে।

রাজধানীতে অবরোধের সমর্থনে ছাত্রদলের মশাল মিছিল

অবরোধের সমর্থনে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী ছাত্রদল রাজধানীর উত্তরাতে মশাল মিছিল করেছে। সোমবার (১১ ডিসেম্বর) সন্ধ্যা সাতটার দিকে এ মিছিলটি করা হয়। ছাত্রদল কেন্দ্রীয় সংসদের সাংগঠনিক সম্পাদক আবু আফসান মোহাম্মদ ইয়াহইয়ার নেতৃত্বে এ মিছিলে অংশগ্রহণ করেন ছাত্রদলের আরও অনেকে।

মশাল মিছিলে উপস্থিত ছিলেন ছাত্রদল কেন্দ্রীয় সংসদের সহ সাংগঠনিক সম্পাদক মো. মনির হোসেন, মুশফিকুর রহিম শেখ, সদস্য মো. খলিলুর রহমান খান সম্রাট, আফজাল রহমান, কবি নজরুল কলেজ ছাত্রদলের সিনিয়র সহ সভাপতি ইরফান আহমেদ ফাহিম।

এ ছাড়া ঢাকা কলেজ ছাত্রদলের যুগ্ম-সম্পাদক মামুনুর রহমান, ঢাবি ছাত্রদলের যুগ্ম-সম্পাদক তৌহিদুল ইসলাম, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রদলের যুগ্ম-সম্পাদক মো. মাইনউদ্দীন, তেজগাঁও কলেজ ছাত্রদলের যুগ্ম-সম্পাদক পাভেল, বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের সহ-সভাপতি আশিক সরকার।

এ ছাড়া আরও উপস্থিত ছিলেন ঢাকা কলেজ ছাত্রদলের নাট্য-বিষয়ক সম্পাদক রাজ, আখতারুজ্জামান ইলিয়াস হলের সাধারণ সম্পাদক শিবলী, সহ-সম্পাদক নাহিদ, ঢাকা মহানগর উত্তর ছাত্রদলের সাবেক যুগ্ম-আহবায়ক ইমাম হোসেন নির্ঝণ, সাবেক সদস্য আক্তার হোসেন শিবলী, সাইফুল ইসলাম অভি, চয়ন হোসেন, একরামুল হক একরাম তুরাগ থানা ছাত্রদলের সাধারন সম্পাদক জাকির হোসেন, সাব্বির হোসেন রবি,উত্তরা পশ্চিম থানা ছাত্রদলের সিনিয়র সহ সভাপতি হোসাইন সামির, হাসান, রুবেল, পিন্টু সহ ছাত্রদলের অন্যান্য নেতারা।

রিজভীর মশাল মিছিলে পুলিশের লাঠিপেটার অভিযোগ, আহত ২০

 

সরকারের পদত্যাগের দাবিতে আজ মঙ্গলবার সকাল ৬ টা থেকে বিএনপির ডাকা ৩৬ ঘণ্টা অবরোধের সমর্থনে বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব অ্যাডভোকেট রুহুল কবির রিজভীর নেতৃত্বে বের করা মশাল মিছিলে হামলা করেছে পুলিশ।

এ সময় পুলিশের হামলা ও লাঠি পেটায় ২০ জনের মতো নেতা-কর্মী আহত হয়েছেন। পুলিশের হামলায় বেশ কয়েকজনের হাত,পা ও আঙ্গুল ভেঙ্গে গেছে। আটক করা হয়েছে বেশ কয়েকজন নেতা-কর্মীকে। বিএনপি অভিযোগ করেছে,গতকাল রাত সাড়ে ৮টার দিকে নাইটেঙ্গেল মোড় থেকে মশাল মিছিল নিয়ে নয়াপল্টনের কাছাকাছি ভাসানী ভবনের সামনে গেলে পুলিশ অতর্কিত মিছিলে হামলা ও লাঠিপেটা করে। পুলিশের হামলা থেকে নেতাকর্মীরা রুহুল কবির রিজভীকে নিরাপদে সরিয়ে নেন। অল্পের জন্য রক্ষা পান তিনি।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন ছাত্রদলের সাবেক ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক আসাদুজ্জামান আসাদ, মহানগর দক্ষিণ বিএনপির সদস্য নাদিয়া পাঠান পাপন, ছাত্রদলের সাবেক সহ-সভাপতি ওমর ফারুক কাওসার, ঢাকা মহানগর উত্তর ছাত্রদলের সাবেক আহবায়ক জসিম শিকদার রানা, ছাত্রদলের সাহিত্য ও প্রকাশনা বিষয়ক সম্পাদক শরিফ প্রধান, ঢাবির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক রাজু আহামেদ, ছাত্রদল নেতা তরিকুল ইসলাম তারিক, বি এম কাউসার, রায়হানুল ইসলাম বাবু, পাভেল, সোহাগ, সাইদুল হীরা, রাহলি বিশ্বাস, শিবলী, আরিফ হোসেন, জুয়েল, খালিদ হাসান হৃদয়, সৌমিক আহমেদ অরণ্য, রিমু হোসাইন , মোকলেছুর রহমান, কিরণসহ ছা্ত্রদল, যুবদল ও অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীরা।

শ্রাবণের নেতৃত্বে রাজধানীতে মশাল মিছিল:
দেশব্যাপী সর্বাত্মক অবরোধের সমর্থনে গুলশানে মশাল মিছিল করেছে ছাত্রদলের নেতাকর্মীরা। গতকাল সোমবার রাতে মিছিলটি গুলশান ২ নং গোল চত্বর থেকে শুরু হয়ে আজাদ মসজিদের সামনে এসে শেষ হয়। মিছিলে নেতৃত্ব দেন ছাত্রদলের সাবেক সভাপতি ও বিএনপির কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য কাজী রওনাকুল ইসলাম শ্রাবণ। মশাল মিছিলে আরো উপস্থিত ছিলেন ছাত্রদল কেন্দ্রীয় সংসদের সহ-সভাপতি কামরুজ্জামান আসাদ, মোঃ মুতাছিম বিল্লাহ, মোঃ ঝলক মিয়া, সাইফুল ইসলাম সিয়াম, মোঃ সুরুজ মন্ডল, মোঃ মহিউদ্দীন, মেহেরাব আহমেদ মাহবুব মাহি, আলী হাওলাদার, যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক জহির রায়হান আহমেদ, মোঃ সালাউদ্দীন, মশিউর রহমান মামুন, লিটন এ আর খান, আরিফুল ইসলাম আরিফ প্রমুখ। এদিকে অবরোধ সমর্থনে ছাত্রদল কেন্দ্রীয় সংসদের সাংগঠনিক সম্পাদক আবু আফসান ইয়াইয়ার নেতৃত্বে রাজধানীতে মশাল মিছিল হয়।

পূর্বের খবরগাজীপুরে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থীর সভায় সাবেক মেয়র জাহাঙ্গীর
পরবর্তি খবরনারীরা কেন পুরুষের তুলনায় রক্তশূন্যতায় বেশি ভোগেন?