বর্গীদের হাতে বর্গা দেওয়া হয়েছে জ্বালানি খাত: চরমোনাই পির

42

অনলাইন ডেস্ক:

আর্থিক খাতকে আইন করে লুটেরাদের হাতে তুলে দেওয়া হয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের আমির ও চরমোনাই পির সৈয়দ মুহাম্মদ রেজাউল করিম।

তিনি বলেন, ‘জ্বালানি খাত বর্গীদের হাতে বর্গা দেওয়া হয়েছে। উৎপাদন ও বিপণন ব্যবস্থাকে চাঁদাবাজদের হাতে তুলে দেওয়া হয়েছে।’

বুধবার (৭ ফেব্রুয়ারি) ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির নসরুল হামিদ মিলনায়তনে আয়োজিত গোলটেবিল বৈঠকে এসব কথা বলেন তিনি। ‘জাতীয় বহুমুখী সংকট উদঘাটন ও নিরসন কল্পে কল্যাণ রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা’ শীর্ষক এই গোলটেবিল বৈঠকের আয়োজন করা হয়।

বৈঠকে সভাপতির বক্তব্যে ইসলামী আন্দোলনের আমির বলেন, ‘দেশে এক ধরনের স্বৈরতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে। সংবিধান, আইন ও উন্নয়নের ভুয়া আবরণে একক ব্যক্তির এই শাসন ক্ষমতা বাকশালের আধুনিক সংস্করণ হয়ে জাতির ওপরে জগদ্দল পাথরের ন্যায় চেপে বসেছে।’

বাংলাদেশে দুর্নীতি মহামারি আকার ধারণ করেছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘সীমাহীন দুর্নীতি, চরম দুঃশাসন ও আকাশচুম্বী বৈষম্য একই সূত্রে গাথা। গণতন্ত্র, উন্নয়ন, মানবাধিকার, অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির পথে দুর্নীতি হলো এককভাবে বিপজ্জনক বাধা।’

সিন্ডিকেট প্রসঙ্গে চরমোনাই পির বলেন, ‘দুর্নীতির মূলোৎপাটন করে, অসাধু ব্যবসায়ী সিন্ডিকেটকে প্রতিহত করতে পারলে চালের দাম কেজি প্রতি সর্বোচ্চ ৪০ টাকা করা যাবে।

একই ধারাবাহিকতায় ডাল, তেল ও অন্যান্য দ্রব্যসামগ্রীর মূল্য ৩০ শতাংশ কমিয়ে আনা যাবে। সব পরিবহনের যাত্রী ভাড়া ৩০ শতাংশ কমানো যাবে। বিদ্যুৎ, গ্যাস ও পানির বিলও ৩০ শতাংশ কমানো যাবে। উৎপাদনমুখী শ্রমিকদের সর্বনিম্ন মজুরি ২০ হাজার টাকা নির্ধারণ করা যাবে।’

পশ্চিমবঙ্গের শান্তিনিকেতনের সংস্কৃতিকে বাংলাদেশের একমাত্র সংস্কৃতি হিসেবে চাপিয়ে দেওয়ার অপচেষ্টা করা হচ্ছে অভিযোগ করে তিনি বলেন, ‘দুর্নীতি, দুঃশাসন, সন্ত্রাসমুক্ত, সুখি-সমৃদ্ধ কল্যাণ রাষ্ট্রই সব শ্রেণি-পেশা ও ধর্মের মানুষের রাজনৈতিক, নাগরিক ও ধর্মীয় অধিকার নিশ্চিত করতে পারে। মানুষের জীবনকে সুন্দর, সফল ও স্বার্থক করে গড়ে তুলতে পারে। তাই সময়ের একান্ত প্রয়োজন কল্যাণরাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা করা। এজন্য সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে।’

চরমোনাই পির আরও বলেন, ‘বাইরে থেকে আনা মূলনীতি, অসৎ লোভী রাজনৈতিক নেতৃত্ব, সহিংস দমন-পীড়নমূলক রাজনৈতিক সংস্কৃতি, সিন্ডিকেট কেন্দ্রিক ব্যবসায়ী গোষ্ঠী আর লুটেরাদের কবলে পড়ে বাংলাদেশ সমস্যার অথৈ সাগরে হাবুডুবু খাচ্ছে। মানুষের যাবতীয় অধিকার গলা টিপে হত্যা করা হয়েছে।

রাষ্ট্রীয় প্রতিষ্ঠানগুলোকে আক্ষরিক অর্থেই হত্যা করা হয়েছে। রাজনীতিকে সহিংসতা ও নোংরামির চূড়ান্ত স্তরে নিয়ে রাজনীতিকে দূষিত ও বিষাক্ত করা হয়েছে।’

সরকারের শিক্ষানীতির সমালোচনা করে তিনি বলেন, ‘এই সরকার শিক্ষানীতি ও পাঠ্যপুস্তক নিয়ে যা করেছে তাকে কেবল নির্মম গণহত্যার সঙ্গেই তুলনা করা যায়। শিক্ষাক্রম নিয়ে নানান পরীক্ষা-নিরীক্ষা পুতুল খেলার অনিশ্চয়তাকেও হার মানিয়েছে। পুতুল খেলাতেও এত সিদ্ধান্তহীনতা থাকে না।

পাঠ্যপুস্তকে এই অঞ্চলের সঙ্গে ইসলামের হাজার বছরের সম্পর্ককে অস্বীকার করা হয়েছে। মুসলমানদের দেখানো হয়েছে হানাদার হিসেবে। ফিলিস্তিনের ইতিহাস পর্যন্ত মুছে দিয়ে সেখানে বর্বর ইহুদিদের মিথ্যা বয়ানকে সংযুক্ত করা হয়েছে।’

পূর্বের খবরমুমিনুল ফিরলো বিপিএলে
পরবর্তি খবরআজ পবিত্র শবেমেরাজ