ফ্রান্সে এম সি ইনস্টিটিউটের স্থায়ী ভবন উদ্বোধন

122
নিজস্ব প্রতিনিধিঃ ফ্রান্সের রাজধানী প্যারিসের পার্শ্ববর্তী শহর সাখসেলে আদর্শ মানুষ গড়ার প্রতিষ্ঠান এম সি ইনস্টিটিউট ফ্রান্স এর স্থায়ী ভবন উদ্বোধন করা হয়েছে। ১৩ জানুয়ারি শনিবার স্থানীয় সময় বেলা ০১ঃ৩০ মিনিটে প্রতিস্ঠানের স্থায়ী ক্যাম্পাসে এক জমকালো উদ্বোধন অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।
May be an image of ১৩ people and crowd
আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন ফালাহ দারাইন মসজিদের খতিব ও ইমাম শায়েখ ওমর।
এম সি ইনস্টিটিউট ফ্রান্স এর প্রিন্সিপাল মাওলানা বদরুল ইসলাম বিন হারুনের সার্বিক তত্ত্বাবধানে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন পন্তা বড় মসজিদের সভাপতি ও ইমাম আব্দুর রহমান, ফালাহ দারাইন মসজিদের সভাপতি চৌধুরী সাঈদ, কমিউনিটি ব্যক্তিত্ব ও এম সি ইনস্টিটিউট ফ্রান্স এর প্রধান উপদেস্টা শরীফ আল মোমীন, প্রকৌশলী আতাউল হক, কমিউনিটি ব্যক্তিত্ব আশরাফুল ইসলাম, কমিউনিটি ব্যক্তিত্ব ও এম সি ইনস্টিটিউট ফ্রান্স এর কোষাধ্যক্ষ লুৎফর রহমান, সাংবাদিক আব্দুল মান্নান আজাদ, আমি ভয়াজের স্বত্বাধিকারী ও এম সি ইনস্টিটিউট ফ্রান্স এর উপদেস্টা তানজিম হায়দার, শামীম মোল্লা, ওভারভিলা মসজিদের সভাপতি সালেহ আহমেদ, এম সি ইনস্টিটিউটের এক্সপার্ট কন্তাবল হুসাইন ও ব্যবসায়ী ফারুক মিয়া প্রমূখ।
May be an image of ১৬ people and people skeet shooting
এতে আরও উপস্থিত ছিলেন ব্যবসায়ী ও এম সি ইনস্টিটিউট ফ্রান্স এর সদস্য আব্দুস সালাম মামুন,মিজানুর রহমান,সাংবাদিক ও মানবাধিকার কর্মী মোহামদ মাহবুব হোসাইন, সাংবাদিক ও মানবাধিকার কর্মী আরিফ উল্লাহ, অল ইউরোপ বাংলাদেশ প্রেসক্লাবের সভাপতি ফয়সাল আহমেদ দ্বীপ, মানবাধিকার কর্মী মোহাম্মদ আল আমিন, ব্যবসায়ী আরিফুজ্জামান ইমন, সাংবাদিক কামারুজ্জামান কাজল, ফ্রান্সের মাখসাই শহরের কমিউনিটি নেতা সাংবাদিক সোহাইল আহমেদ, নও মুসলিম বিশিস্ট ব্যাংকার লুইক, এনটিভি ফ্রান্স প্রতিনিধি আবুল কালাম মামুন, সাংবাদিক বদরুল বিন আফরুজ, সাংবাদিক ওমর ফারুক, সাংবাদিক এমসি রোমেল, ওবায়দুল হক, মোঃ হেলাল আহমেদ, সাংবাদিক আব্দুল মুনিম জুনায়েদ,মাসুম রিকাবদার, তোফায়েল আহমেদ জয়নুল, দেলোয়ার হোসেন মেজবাহ ও হাসান হক প্রমূখ।
May be an image of ১৪ people
সভায় বক্তারা বলেন, ফ্রান্সে বাংলাদেশীদের পূর্ণাঙ্গ দ্বীনি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান নাই। প্রবাসীদের ছেলে-মেয়েদের দ্বীনি শিক্ষায় শিক্ষিত করে গড়ে তোলার জন্য এমন একটি প্রতিষ্ঠানের বিশেষ প্রয়োজন ছিলো যা আজ পূরণ হলো। ব্যাক্তি, সমাজ, দেশকে উন্নয়ন করতে হলে শিক্ষার পরিবেশ তৈরী করতে হবে। শিক্ষাই পারে সমাজ ও ব্যাক্তিকে অন্ধকার থেকে আলোর মুখ দেখাতে। আর সেই শিক্ষা হতে হবে মহান আল্লাহর সন্তুষ্টি লাভের মাধ্যমে। বক্তারা পুরষদের শিক্ষার পাশাপাশি নারীদের বেশি করে শিক্ষিত করে গড়ে তোলার গুরুত্বারোপ করেন। এই দ্বীনি প্রতিষ্ঠানে মেয়েদের ভর্তি করে দিতে অভিভাবকদের প্রতি আহবান জানানো হয়।
ছাত্র-ছাত্রী, অভিভাবক ও ফ্রান্স প্রবাসী বাংলাদেশীদের পাশাপাশি অন্যান্য কমিউনিটির গণ্যমান্য ব্যক্তিদের সরব উপস্থিতিতে মুখরিত ছিলো অনুষ্ঠান প্রাঙ্গন।
বেলা ৪:৩০ মিনিটে মোনাজাত ও অতিথি আপ্যায়নের মধ্য দিয়ে এ উদ্বোধনী অনুষ্ঠান শেষ করা হয়।
এখানে উল্লেখ্য, ফ্রান্সে প্রবাসী বাংলাদেশীদের আগামী দিনের ভবিষ্যৎ শিশু-কিশোর ও বয়স্ক নারী-পুরুষদের মাঝে ইসলামের নৈতিক ও সাংস্কৃতিক শিক্ষা জাগ্রত রাখার মহৎ উদ্দেশ্য ̈ সামনে রেখে গত ১০ মার্চ ২০১৬ সালে ফ্রান্সে বসবাসরত একদল নিবেদিত ও সাহসী মানুষের প্রচেষ্টায় যাত্রা শুরু করে এম সি ইনস্টিটিউট ফ্রান্স। এই প্রতিষ্ঠান ইতিমধ্যে সাখসেল প্রিফেকচারের মাধ্যমে রেজিস্ট্রেশন লাভ করেছে।
পূর্বের খবরদেশ এখন কূটনীতি-অর্থনীতির ভারসাম্যের দড়িখেলায়
পরবর্তি খবরদেশে কী দুটি সংসদ একসঙ্গে কার্যকর?