দেশে নামেই গণতন্ত্র: অ্যান্ড্রু ফিরমিন

51

ঢাকাঃ বাংলাদেশে সবেমাত্র নির্বাচন হয়েছে। কিন্তু তা গণতন্ত্র থেকে অনেক দূরে। ৭ই জানুয়ারি অনুষ্ঠিত সাধারণ নির্বাচনে শেখ হাসিনা তার টানা চতুর্থ মেয়াদে এবং সামগ্রিকভাবে পঞ্চমবারের মতো প্রধানমন্ত্রী হিসেবে জয়লাভ করেন। প্রধান বিরোধী দল বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের কাছে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে নির্বাচনের দাবি জানিয়েছিলো। কিন্তু সরকার তাতে রাজি না হওয়ায় বিএনপি ভোট বর্জন করে। তাই ভোটের  ফলাফল আগে থেকেই অনুমেয় ছিলো। ২০১১ সালে আওয়ামী লীগ সরকার এই প্রথা বাতিল করে, যদিও বিএনপির দাবি ছিল একটি অবাধ ও সুষ্ঠু ভোট নিশ্চিত করার জন্য এটি একমাত্র উপায়।

তবে বিএনপির ভোট বর্জনের এটি একমাত্র কারণ ছিল না।  প্রাক-নির্বাচন পর্বে সরকারের ভীতি প্রদর্শনের একটি নির্লজ্জ চিত্র দেখা গেছে। সরকারের সমালোচক, কর্মী এবং প্রতিবাদকারীরা হুমকি, সহিংসতা এবং গ্রেপ্তারের শিকার হয়েছেন। সরকারের অনুরোধে বিরোধী সদস্যদের বিরুদ্ধে আদালতের মামলাগুলিকে ত্বরান্বিত করা হয়, যাতে তারা নির্বাচনের আগে কারাগারেই অবরুদ্ধ থাকেন।

mzamin

ফলে সেপ্টেম্বর থেকে ডিসেম্বর ২০২৩ এর মধ্যে ৮০০-এর বেশি মানুষকে দোষী সাব্যস্ত করা হয়। অভিযোগ উঠেছে যে, জোর করে স্বীকারোক্তি নিতে গিয়ে বিরোধী কর্মীদের বিরুদ্ধে নির্যাতন ও দুর্ব্যবহার করা হয়েছে। পুলিশ হেফাজতে মৃত্যুর খবরও পাওয়া গেছে। পুলিশ বিক্ষোভ নিষিদ্ধ করেছিল এবং ২৮ অক্টোবর মহাসমাবেশে পুলিশ রাবার বুলেট, টিয়ারগ্যাস এবং স্টান গ্রেনেড ব্যবহার করে। বিক্ষোভের পরে বানোয়াট অভিযোগে আরও হাজার হাজার বিরোধী সমর্থককে আটক করা হয়। পাশাপাশি র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব)-এর সহিংসতা (বল প্রয়োগের জন্য সমালোচিত একটি অভিজাত ইউনিট ) এবং পুলিশ বাহিনীর উপস্থিতিতে  বিরোধী দলের কর্মীরা আওয়ামী লীগ সমর্থকদের দ্বারা আক্রমণের সম্মুখীন হয়। খবর সংগ্রহ করার সময়  সাংবাদিকদেরও গালি দেয়া হয়েছে, আক্রমণ করা হয়েছে এবং হয়রান করা হয়েছে।
ক্ষমতাসীন দলের প্রাক-নির্বাচন ক্র্যাকডাউনের সরাসরি ফলাফল হিসাবে, CIVICUS Monitor ( সহযোগিতামূলক গবেষণা প্রকল্প যা প্রতিটি দেশে নাগরিক সমাজের  স্বাস্থ্য ট্র্যাক করে )  ২০২৩ সালের ডিসেম্বরে বাংলাদেশের সিভিক স্পেস রেটিং কমিয়ে  তা ‘ক্লোজড’ র‌্যাংকিং দেয়। এটি চীন, ইরান এবং রাশিয়া সহ বিশ্বের সবচেয়ে খারাপ মানবাধিকার অপরাধীদের মধ্যে বাংলাদেশকে স্থান দিয়েছে। নাগরিক সমাজের উদ্বেগগুলি ২০২৩ সালের নভেম্বরে জাতিসংঘের মানবাধিকার বিশেষজ্ঞদের দ্বারা প্রতিধ্বনিত হয়েছিল যারা রাজনৈতিক সহিংসতা, গ্রেপ্তার, গণআটক, বিচারিক হয়রানি, অত্যধিক বলপ্রয়োগ এবং ইন্টারনেট বিধিনিষেধের বিষয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছিল।

সর্বাত্মক হামলা
বাংলাদেশে  ‘সিভিক স্পেস’ বন্ধের তীব্রতা এতটাই যে প্রবাসে থাকা ব্যক্তিদের থেকে এখন অনেক শক্তিশালী ভিন্নমত শোনা যাচ্ছে ।  কিন্তু বাংলাদেশের বাইরে থেকে কথা বললেও নিরাপত্তা নিশ্চিত করা যায় না। নির্বাসিত নেতাকর্মীদের ওপর চাপ সৃষ্টির উপায় হিসেবে কর্তৃপক্ষ তাদের পরিবারকে হয়রানি করছে।এমনকি জাতিসংঘেও অ্যাক্টিভিস্টরা নিরাপদ নয়। নভেম্বরে জাতিসংঘের মানবাধিকার কাউন্সিলের শাখায় একটি সুশীল সমাজের আলোচনা সরকারি সমর্থকদের দ্বারা ব্যাহত হয়েছিল, বাংলাদেশি মানবাধিকার সংস্থা অধিকার- এর  নেতা আদিলুর রহমান খান মৌখিক আক্রমণের শিকার হন। খান বর্তমানে জামিনে আছেন, কিন্তু তাদের কাজের প্রতিশোধ নিতে  তাকে এবং অধিকারের আরেক নেতার উপর আরোপিত দুই বছরের কারাদণ্ডের বিরুদ্ধে তিনি আপিল করেছেন। জেনেভায় অধিবেশনের পরে খানকে অনলাইন নিউজ সাইটগুলিতে আরও নিন্দিত করা হয়েছিল এবং মিথ্যা তথ্য উপস্থাপনের জন্য অভিযুক্ত করা হয়েছিল।

অন্যরাও হামলার শিকার হচ্ছেন। শেখ হাসিনা এবং তার সরকার তাদের অর্থনৈতিক রেকর্ডের অনেকটাই নিজেরাই  তৈরি করেছে, বাংলাদেশ এখন বিশ্বের অন্যতম বৃহত্তম পোশাক উৎপাদনকারী দেশ । কিন্তু সেই সাফল্য মূলত স্বল্প মজুরির ভিত্তিতে। অনেক দেশের মতো বাংলাদেশেও বর্তমানে উচ্চ মূল্যস্ফীতি বিদ্যমান এবং গার্মেন্টস শ্রমিকদের তাদের অবস্থার উন্নতির জন্য সাম্প্রতিক প্রচেষ্টাকে দমন করা হয়েছে। সরকার-নিযুক্ত প্যানেল গার্মেন্টস সেক্টরের শ্রমিকদের জন্য ন্যূনতম মজুরি তাদের দাবির চেয়ে অনেক নিম্ন স্তরে উন্নীত করার পরে ২০২৩ সালের অক্টোবর এবং নভেম্বরে শ্রমিকরা বিক্ষোভ করেছিল। ২৫০০০ শ্রমিক  বিক্ষোভে অংশ নিয়েছিল। অন্তত ১০০টি কারখানার দরজা  বন্ধ  হয়ে যায়। পুলিশি নির্যাতনের শিকার হন তারা। এতে অন্তত দুইজন নিহত এবং আরো অনেকে আহত হন। আপাতদৃষ্টিতে কেউ নিরাপদ নয়। নোবেল বিজয়ী ড. মুহাম্মদ ইউনূস যিনি গ্রামীণ ব্যাংক প্রতিষ্ঠা করেছিলেন সম্প্রতি একটি বিচারে শ্রম আইনের অপরাধে দোষী সাব্যস্ত হয়েছেন। যাকে  তার সমর্থকরা রাজনৈতিকভাবে উদ্দেশ্যপ্রণোদিত বলে নিন্দা করেছেন।  ড. ইউনূস দীর্ঘদিন ধরে ক্ষমতাসীন দলের সমালোচনা ও হুমকির লক্ষ্যবস্তু।

নামেই গণতন্ত্র
২০০৮ সালে শেষ  অবাধ ও নিরপেক্ষ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় ফিরে আসার পর থেকে বাংলাদেশের নির্বাচনের মান নাটকীয়ভাবে হ্রাস পেয়েছে। এর পর থেকে প্রতিটি নির্বাচন গুরুতর অনিয়ম এবং প্রাক-ভোটিং ক্র্যাকডাউন দ্বারা চিহ্নিত করা হয়েছে, কারণ ক্ষমতাসীনরা টিকে থাকার  জন্য যথাসাধ্য সবকিছু করেছে। তবে এবার আওয়ামী লীগের জয় বরাবরের মতোই বিশাল হলেও ভোটার উপস্থিতি কম ছিল। এটি  ২০১৮ সালের তুলনায়  প্রায় অর্ধেক ছিল, মাত্র ৪১.৮ শতাংশ।  এমনকি এই সংখ্যাটিও স্ফীত করে দেখানো  হতে পারে। ভোটারদের অংশগ্রহণের অভাব  প্রমাণ করে যে  আওয়ামী লীগের বিজয় একটি পূর্বনির্ধারিত উপসংহার: অনেক আওয়ামী লীগ সমর্থক মনে করেননি তাদের ভোট দেওয়ার প্রয়োজন ছিল এবং অনেক বিরোধী সমর্থকদের ভোট দেওয়ার মতো কেউ ছিল না।

মানুষ জানত যে, অনেক কথিত স্বতন্ত্র প্রার্থী বাস্তবে আওয়ামী লীগ সমর্থকদের একটি ছদ্ম-বিরোধী হিসাবে নির্বাচনী প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়েছে। দ্বিতীয় স্থানে আসা দলটিও ক্ষমতাসীন দলের সঙ্গে জোটবদ্ধ। সমস্ত নির্বাচনী বিশ্বাসযোগ্যতা এবং বৈধতা এখন অতীতের ব্রেকিং পয়েন্টে চাপা পড়ে গেছে। চীন এবং ভারতের মতো গুরুত্বপূর্ণ মিত্রদের থেকে গণতান্ত্রিক নিয়ম মেনে চলার জন্য সরকার সেভাবে কোনো চাপের সম্মুখীন হয়নি, যদিও একসময়ের সমর্থক মার্কিন সরকার সাম্প্রতিক বছরগুলিতে তার অবস্থান পরিবর্তন করেছে। কিছু র‍্যাব কর্মকর্তার উপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে এবং নির্বাচনী প্রক্রিয়াকে ক্ষতিগ্রস্তকারী বাংলাদেশিদের জন্য ভিসা বন্ধ করার হুমকি দিয়েছে। অর্থনৈতিক অবস্থার আরও অবনতি হলে অসন্তোষ বাড়বে এবং সেইসঙ্গে বাড়বে দমন-পীড়ন । আন্তর্জাতিক অংশীদারদের অবশ্যই এটি এড়াতে বাংলাদেশ সরকারকে একটি উপায় খুঁজে বের করার আহ্বান জানাতে হবে। আরও সহিংসতা এবং তীব্র কর্তৃত্ববাদ এগিয়ে যাওয়ার পথ হতে পারে না। বরং বাংলাদেশকে গণতন্ত্রের পথে  যাত্রা শুরু করার আহ্বান জানানো উচিত।

সূত্র :  ipsnews

(অ্যান্ড্রু ফিরমিন CIVICUS এর  এডিটর-ইন-চিফ, CIVICUS লেন্সের সহ-পরিচালক এবং লেখক।  স্টেট অফ সিভিল সোসাইটি রিপোর্টের সহ-লেখক।)

পূর্বের খবরদেশে এ কোন রাজনীতি চলছে!
পরবর্তি খবরইউরোপীয় ইউনিয়ন ৭ জানুয়ারির নির্বাচনে ভোটের হার জানতে চেয়েছে