দেশে নতুন করে শৈত্যপ্রবাহ ও বৃষ্টির সম্ভবনা

100

দেশে আগামী ২৪ ঘণ্টা তাপমাত্রা কিছুটা কমবে বলে জানিয়েছে আবহাওয়া অধিদপ্তর। আজ সন্ধ্যা ৬টা থেকে দেয়া আবহাওয়ার পূর্বাভাসে এ তথ্য জানানো হয়। আবহাওয়ার পূর্বাভাসে বলা হয়, শেষরাত থেকে সকাল পর্যন্ত দেশের নদী-অববাহিকায় মাঝারি থেকে ঘন কুয়াশা এবং অন্যত্র হালকা থেকে মাঝারি ধরনের কুয়াশা পড়তে পারে। ঘন কুয়াশার কারণে অভ্যন্তরীণ নৌ পরিবহনে সাময়িক বিঘ্ন ঘটতে পারে। এছাড়া অস্থায়ীভাবে আংশিক মেঘলা আকাশসহ সারাদেশের আবহাওয়া প্রধানত শুষ্ক থাকতে পারে। অন্যদিকে উপমহাদেশীয় উচ্চচাপ বলয়ের বর্ধিতাংশ পশ্চিমবঙ্গ ও তৎসংলগ্ন এলাকায় অবস্থান করছে। মৌসুমের স্বাভাবিক লঘুচাপ দক্ষিণ বঙ্গোপসাগরে অবস্থান করছে।

ঢাকাঃ সারাদেশে আবার শেষের দিকে শীত। প্রতিদিনই তাপমাত্রা একটু করে বাড়ছে। কিন্তু এরই মাঝে বৃষ্টির দেখা দিয়েছে। ফলে আজ শনিবার সারাদেশে রাতের তাপমাত্রা ১ থেকে ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস কমতে পারে। এতে রাতে শীতের অনুভূতি কিছুটা বাড়তে পারে।আবহাওয়া অধিদপ্তরের আবহাওয়াবিদ মনোয়ার হোসেন বলেন, ফেব্রুয়ারির দ্বিতীয় সপ্তাহের শুরুতে দেশের দক্ষিণাঞ্চল, উত্তর-পূর্বাঞ্চল এলাকায় তাপমাত্রা কমে আসবে। তখন শৈত্যপ্রবাহ হতে পারে। সব মিলিয়ে ফেব্রুয়ারির মাঝামাঝি পর্যন্ত ঠান্ডা থাকবে। এরপর দিন ও রাতের তাপমাত্রা বাড়বে ধীরে ধীরে।

তাপমাত্রা আজ কিছুটা কমেছে উল্লেখ করে তিনি জানান, ঢাকায় শনিবার সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল ১৭ দশমিক ৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস যা শুক্রবার ছিল ১৮  দশমিক ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

বৃষ্টির সম্ভাবনা আপাতত নেই জানিয়ে তিনি বলেন, শুক্রবার রাতে চট্টগ্রাম ও বরিশালের দুই-এক জায়গায় সামান্য বৃষ্টি হয়েছে। আজ বৃষ্টির সম্ভাবনা নেই।

এদিকে আজ আবহাওয়ার পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, অস্থায়ীভাবে আংশিক মেঘলা আকাশসহ সারাদেশের আবহাওয়া শুষ্ক থাকতে পারে। মধ্যরাত থেকে সকাল পর্যন্ত সারাদেশে মাঝারি থেকে ঘন কুয়াশা পড়তে পারে। ঘন কুয়াশার কারণে বিমান চলাচল, অভ্যন্তরীণ নৌ পরিবহন ও সড়ক যোগাযোগে সাময়িকভাবে বিঘ্ন ঘটতে পারে।

সারাদেশে রাতের তাপমাত্রা ১ থেকে ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস কমতে পারে। দিনের তাপমাত্রা প্রায় অপরিবর্তিত থাকতে পারে। তবে রোববার সারাদেশে রাতের তাপমাত্রা সামান্য বাড়তে পারে। সামান্য কমতে পারে দিনের তাপমাত্রা।

আবহাওয়া অধিদপ্তরের তথ্য অনুযায়ী, শুক্রবার সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ১১ থেকে ১৩.৩ ডিগ্রি সেলসিয়াসের মধ্যে ছিল দিনাজপুর, কুড়িগ্রামের রাজারহাট, নীলফামারীর সৈয়দপুর ও ডিমলা, নওগাঁর বদলগাছী ও রংপুরে। দেশের অন্যান্য অঞ্চলের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল ১৪ থেকে ১৯ ডিগ্রি সেলসিয়াসের মধ্যে। ঢাকায় সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল ১৮ দশমিক ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস, সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল ২৭ দশমিক ৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস। এ দিন দেশের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল ভোলা ও বাগেরহাটের মোংলায় ২৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

 

বৃষ্টির সম্ভাবনা নেই, তবে শীত নিয়ে দুঃসংবাদে যা বলছে আবহাওয়া অফিস

 

মৌসুমের স্বাভাবিক লঘুচাপ দক্ষিণ বঙ্গোপসাগরে অবস্থান করছে। ফলে আপাতত বৃষ্টির সম্ভাবনা নেই। সকাল থেকেই সূর্য উঁকি দেওয়ায় দিনে শীতের অনুভূতি কমেছে। তবে বিভিন্ন অঞ্চলে বৃষ্টিপাতের ফলে ফের কমতে শুরু করেছে তাপমাত্রা।

শনিবার (৩ ফেব্রুয়ারি) সকাল ৯টা থেকে পরবর্তী ৭২ ঘণ্টার আবহাওয়ার পূর্বাভাসে এসব কথা বলা হয়েছে।

স্বস্তির খবর, আগামী পাঁচ দিনে নতুন করে বৃষ্টিপাতের পূর্বাভাস নেই। তবে এই সময়ে রাতের তাপমাত্রা কমে শীত অনুভূত হতে পারে।

দেশের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে উত্তরের সীমান্তঘেঁষা জেলা পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়ায়, ৮ দশমিক ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস। এই সময়ে রাজধানী ঢাকায় সর্বনিম্ন ১৬ দশমিক ৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে। এ ছাড়া গত ২৪ ঘণ্টায় নোয়াখালীর হাতিয়ায় সর্বোচ্চ ৩ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে।

আবহাওয়াবিদ খোন্দকার হাফিজুর রহমান জানিয়েছেন, আগামী ৩ দিনে (৭২ ঘণ্টা) দেশে বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা নেই। এই সময়ে অস্থায়ীভাবে আংশিক মেঘলা আকাশসহ সারা দেশের আবহাওয়া প্রধানত শুষ্ক থাকতে পারে। তবে শেষ রাত থেকে সকাল পর্যন্ত দেশের নদী অববাহিকায় মাঝারি থেকে ঘন কুয়াশা এবং অন্যত্র হালকা থেকে মাঝারি ধরনের কুয়াশা অব্যাহত থাকবে। সেই সঙ্গে ঘন কুয়াশার কারণে অভ্যন্তরীণ নৌ পরিবহণে সাময়িকভাবে বিঘ্ন ঘটতে পারে।

এ অবস্থায় আজ শনিবার সকাল ৯টা থেকে পরবর্তী ২৪ ঘণ্টায় সারা দেশে রাতের তাপমাত্রা ১-২ ডিগ্রি সেলসিয়াস হ্রাস পেতে পারে এবং দিনের তাপমাত্রা প্রায় অপরিবর্তিত থাকতে পারে। তবে রোববার ও সোমবার (৪-৫ ফেব্রুয়ারি) সারা দেশে রাতের তাপমাত্রা সামান্য বৃদ্ধি পেতে পারে এবং দিনের তাপমাত্রা প্রায় অপরিবর্তিত থাকতে পারে। এ ছাড়া আগামী পাঁচ দিনে রাতের তাপমাত্রা হ্রাস পেতে পারে।

আবহাওয়া অধিদপ্তর জানিয়েছে, উপমহাদেশীয় উচ্চচাপ বলয়ের বর্ধিতাংশ পশ্চিমবঙ্গ ও তৎসংলগ্ন এলাকায় অবস্থান করছে। সেই সঙ্গে মৌসুমের স্বাভাবিক লঘুচাপ দক্ষিণ বঙ্গোপসাগরে অবস্থান করছে। এই অবস্থায় শনিবার সকালে ঢাকায় পশ্চিম/উত্তর-পশ্চিম দিক থেকে ঘণ্টায় ৮-১২ কিলোমিটার বেগে বাতাস বইছিল। পাশাপাশি সকাল ৬টায় রাজধানীতে বাতাসের আপেক্ষিক আর্দ্রতা ছিল ৯২ শতাংশ।

পূর্বের খবরযুক্তরাষ্ট্র কেন ভারতের পরামর্শে বাংলাদেশের বিষয়ে অবস্থান পরিবর্তন করলো
পরবর্তি খবরঅগ্নিকাণ্ড এড়াতে ভবন নির্মাণ নীতিমালা মেনে চলার তাগিদ