দেশে কসমেটিকস ব্যবসার তদারকি করবে ঔষধ প্রশাসন

87

ঢাকাঃ সারাদেশে নকল কসমেটিকস ব্যবসা ঠেকাতে ঔষধ প্রশাসন থেকে লাইসেন্স নেওয়ার বিধান যুক্ত করে ‘ঔষধ ও কসমেটিকস বিল, ২০২৩’ সংসদে পাস হয়েছে। নতুন আইনে ব্যবহার বা ব্যবহারজনিত ফলাফল সম্পর্কিত ভুল বা অসত্য তথ্য দিলে উৎপাদনকারী, আমদানিকারক, বাজারজাতকারক বা বিক্রয়কারীদের অনধিক ৩ লাখ টাকা অর্থদণ্ডের বিধান রাখা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (৭ সেপ্টেম্বর) সংসদের বৈঠকে বিলটি উত্থাপন করেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক। পরে তা কণ্ঠভোটে পাস হয়। এর আগে বিলের ওপর আনা বিরোধী দলীয় সদস্যদের জনমত যাচাই, বাছাই কমিটিতে পাঠানো এবং সংশোধনীর প্রস্তাব নিষ্পত্তি করা হয়।

ghgukবিলের তফসিলে ৩৩ ধরনের অপরাধ চিহ্নিত করে সেগুলোর ক্ষেত্রে কী সাজা হবে তা উল্লেখ করা হয়েছে। এ ক্ষেত্রে অপরাধের ধরন অনুযায়ী সর্বনিম্ন ১০ হাজার টাকা জরিমানা থেকে শুরু করে সর্বোচ্চ ১৪ বছরের জেল ও ১০ লাখ টাকা জরিমানার বিধান রাখা হয়েছে।

বিলে বলা হয়েছে, বিজ্ঞাপনে কোনো কসমেটিকসের ব্যবহার বা ব্যবহারজনিত ফলাফল সম্পর্কিত অসত্য দাবি থাকলে সর্বোচ্চ ৩ লাখ টাকা অর্থদণ্ড হবে। এ সম্পর্কে বলা হয়েছে, কোনো ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠান লাইসেন্সিং কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে নিবন্ধন নেওয়া ছাড়া কোনো ধরনের কসমেটিকস উৎপাদন, বিতরণ, আমদানি বা রপ্তানি করতে পারবে না।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক বলেন, ‘১৯৪০ সালের ড্রাগস আইন এবং ১৯৮২ সালের আইন দুটিকে এক করে যুগোপযোগী করে এই বিল আনা হয়েছে। কসমেটিকস ব্যবসায়ীদের ক্ষতি করা সরকারের উদ্দেশ্য নয়। মানুষের স্বাস্থ্য এবং ভেজাল ওষুধ ও কসমেটিকস প্রতিরোধ করাই সরকারের উদ্দেশ্য।’

বিলে বিউটি পারলার বা অন্য কোথাও নিবন্ধিত চিকিৎসক ছাড়া মানবদেহে ফিলার, বোটক্স, গ্লুটাথিয়ন বা অন্য কোন কসমেটিকস প্রয়োগ দণ্ডনীয় অপরাধ বলে গণ্য হবে।

প্রস্তাবিত বিলে ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তরের দায়িত্ব ও কর্মপরিধি সুনির্দিষ্ট করা হয়েছে। এতে বলা হয়েছে, কসমেটিকস বিক্রি, আমদানি ও উৎপাদন করতে হলে লাইসেন্স নিতে হবে। ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তর লাইসেন্স অথোরিটি হিসেবে কাজ করবে। এখন যারা কসমেটিকসের ব্যবসা বা উৎপাদন করছেন তাঁদের লাইসেন্স নিতে হবে। এ জন্য ঔষধ প্রশাসন বিধি প্রণয়ন করবে।

dfhr

চিকিৎসকের প্রেসক্রিপশন ছাড়া অ্যান্টিবায়োটিক বিক্রি করলে ২০ হাজার টাকা জরিমানার বিধান রাখা হয়েছে। প্রস্তাবিত আইনে ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালের মাধ্যমে ওষুধের নিরাপত্তা, কার্যকারিতা, নতুন ওষুধ, ভ্যাকসিনের তৈরির বিষয়টি সুনির্দিষ্ট করে দেওয়া হয়েছে।

বিলে বলা হয়েছে, ওভার দ্য কাউন্টার (ওটিসি— যেসব ওষুধ কিনতে প্রেসক্রিপশন লাগে না, যেমন: প্যারাসিটামল) ওষুধ ছাড়া রেজিস্টার্ড চিকিৎসকের ব্যবস্থাপত্র ছাড়া কোনো ওষুধ বিক্রি ও ব্যবহার বন্ধ থাকবে। এটি শাস্তিযোগ্য অপরাধ।

মেডিকেল ডিভাইস ব্যবহারের ক্ষেত্রে প্রস্তাবিত আইনে ধারা অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। মেডিকেল ডিভাইসকে ওষুধ হিসেবে আখ্যায়িত করা হয়েছে। কিছু ওষুধের দাম সরকার নির্ধারণ করে দেবে বলে বিলে উল্লেখ করা হয়েছে।

পূর্বের খবরবাংলাদেশে মার্কিন মিশন কি রাশিয়া, চীন, ফ্রান্স রুখতে পারবে?
পরবর্তি খবরব্রিকসের সদস্য হতে না পারা বাংলাদেশের বড় ব্যর্থতা নয়