জাতিসংঘের আদালত গাজায় যুদ্ধ বিরতির আদেশ দেয়নি, ইসরাইলকে গণহত্যা প্রতিরোধে নির্দেশ দিয়েছে

105

অনলাইন ডেস্কঃ গাজায় গণহত্যার মতো অপরাধ ঠেকাতে এবং বেসামরিক ফিলিস্তিনিদের সহায়তা দিতে ইসরায়েলকে সব ধরনের পদক্ষেপ নেওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন ইন্টারন্যাশনাল কোর্ট অব জাস্টিস-আইসিজে।

শুক্রবার নেদারল্যান্ডসের হেগে অন্তর্বর্তীকালীন রায়ে এ নির্দেশ দেন আদালত। তবে গাজায় ইসরায়েলের সামরিক অভিযান বন্ধের যে আদেশ দক্ষিণ আফ্রিকা চেয়েছিল, তাতে সায় দেননি জাতিসংঘের এ সর্বোচ্চ আদালত। এদিকে যুদ্ধবিরতি বা যুদ্ধ বন্ধের কোনো আদেশ না দেওয়ায় গাজার সাধারণ মানুষের মধ্যে এ নিয়ে হতাশা দেখা দিয়েছে।

জাতিসংঘের আন্তর্জাতিক ন্যায়বিচার আদালত(আইসিজে)গাজা ভূখণ্ডে ফিলিস্তিনিদের বিরুদ্ধে গণহত্যা রোধে ইসরাইলকে ‘তার ক্ষমতার মধ্যে’ সব ধরনের ব্যবস্থা নেয়ার নির্দেশ দিয়েছে। তবে এই বিরোধপূর্ণ অঞ্চলে কোনো যুদ্ধ বিরতির আদেশ দেয়নি আইসিজে।

শুক্রবার ১৭ জন বিচারক নিয়ে গঠিত আইসিজে প্রদত্ত প্রাথমিক রায়ে, ইসরাইলকে গাজায় মৌলিক পরিষেবা এবং মানবিক সহায়তা প্রদানের পদ্ধতি কার্যকর করতে নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

গাজায় এই অঞ্চলের ২৩ লাখ মানুষের বেশিরভাগ, ইসরাইল ও জঙ্গি গোষ্ঠী হামাসের মধ্যে তিন মাস ধরে চলমান যুদ্ধের কারণে পর্যাপ্ত খাদ্য ও আশ্রয় খুঁজে পেতে লড়াই করছে।

আইসিজে-তে মামলাটি দায়ের করেছিলো দক্ষিণ আফ্রিকা। তারা অভিযোগ করেছিলো যে, দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ ও হলোকাস্টের পর ১৯৪৮ সালে প্রতিষ্ঠিত জাতিসংঘের গণহত্যা কনভেনশন লঙ্ঘন করছে ইসরাইল।

রায় উপস্থাপনের সময় প্রিজাইডিং জাজ হুয়ান ডনোঘু বলেন, কনভেনশন অনুযায়ী গণহত্যা প্রতিরোধের মধ্যে রয়েছে, কোনো গোষ্ঠীর সদস্যদের গুরুতর শারীরিক বা মানসিক ক্ষতি রোধ করা এবং কোনো গোষ্ঠীকে ধ্বংস করারা জন্য ইচ্ছাকৃতভাবে কোনো পদক্ষেপ প্রতিরোধ করা।গাজায় গণহত্যা বন্ধে ব্যবস্থা নিতে ইসরায়েলকে নির্দেশ

দক্ষিণ আফ্রিকার অভিযোগকে ‘দ্বিচারিতা’ বলে প্রত্যাখ্যান করেছে ইসরাইল।বলেছে,“এখন বিশ্ব উল্টে গেছে।”

রায়ের পর, ইসরাইলের প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু গণহত্যার দাবিকে ‘আক্রোশ প্রসূত’ বলে প্রত্যাখ্যান করেছেন এবং যুদ্ধ চালিয়ে যাওয়ার অঙ্গীকার করেছেন।

ফিলিস্তিনি কর্মকর্তারা এই সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়েছেন।

ফিলিস্তিনের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বলেছে, এর মাধ্যমে প্রাথমিকভাবে এ কথাই স্মরণ করিয়ে দেয়া হলো যে, ‘কোনো রাষ্ট্রই আইনের ঊর্ধ্বে নয়।’

হামাসের জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তা সামি আবু জুহরি রয়টার্সকে বলেন, এই সিদ্ধান্ত ‘দখলদারিত্বকে চিহ্নিত করতে এবং গাজায় সংঘটিত অপরাধ উন্মোচনে’ ভূমিকা রাখবে।

অ্যাডভোকেসি গ্রুপ হিউম্যান রাইটস ওয়াচ এই রায়ের প্রশংসা করেছে।

আইসিজের দেয়া এই আদেশ মেনে চলা সদস্য রাষ্ট্রগুলোর জন্য আইনত বাধ্যতামূলক। ইসরাইল এই রায় মেনে চলবে কি না তা স্পষ্ট নয়।

এদিকে, দক্ষিণ আফ্রিকার দায়ের কার গণহত্যার মামলার পূর্ণাঙ্গ রায় দিতে, আদালতের কয়েক বছর সময় লাগবে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

পূর্বের খবর‘সত্যিকারের জনগণের ম্যান্ডেট নিয়ে সংসদ গঠিত হয়নি’ : ড. মঈন খান
পরবর্তি খবরপোপের সেঞ্চুরিতে বড় লিডের খোঁজে ইংল্যান্ড